দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা নিষেধ। আর দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে পুরুষের যে সমস্ত মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে।

দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা নিষেধ। আর দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে পুরুষের যে সমস্ত মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে।

দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা নিষেধ। আর দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে পুরুষের যে সমস্ত মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে।
দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা নিষেধ। আর দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে পুরুষের যে সমস্ত মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে।


মানবজীবনে শান্তি ও সুস্থ্যতায় দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা থেকে বরত থাকা জরুরি। ইসলাম দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ প্রদান করে। কারণ শান্তিপূর্ণ জীবনের জন্য সুন্নাতের অনুসরণ ও অনুকরণের বিকল্প নেই।

ইসলামের প্রতিটি হুকুমই মানুষের জীবনে উপকার বয়ে আনে। অনেক সময় কল্যাণকর অনেক কাজ আমরা অবহেলায় করে গুরুত্ব দেই না। কিংবা জ্ঞানের স্বল্পতাবশত অনেকেই সুন্নাতের অনুসরণ থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখে।



দেড়হাজার বছর আগে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা থেকে নিজেদের বিরত রাখতে বলেছেন। ফিকহের পরিভাষায় দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করাকে মাকরূহে তাহরিমি বলে অভিহিত করা হয়েছে। হাদিসে এসেছে-

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন, তোমাদের মাঝে যারা বলে যে রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করেছেন, তাদের কথা বিশ্বাস করো না। কেননা রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বসেই প্রস্রাব করতেন।’ (তিরমিজি)

হাদিসের অন্য বর্ণনায় এসেছে, প্রস্রাবের কারণে মানুষের কবরে আজাব হয়। তাই প্রিয়নবি প্রস্রাবের অপবিত্রতা থেকে নিজেদেরকে হেফাজতের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন।

দাাঁড়িয়ে প্রস্রাব করার ব্যাপারে প্রিয়নবির সে নিষেধাজ্ঞাকে বর্তমান সময়ে চিকিৎসা বিজ্ঞান বিশেষভাবে সমর্থন করছে। শুধু তা-ই নয়, চিকিৎসা বিজ্ঞানের গবেষনায় দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করার অনেক ক্ষতিকর দিকও বেরিয়ে এসেছে-



01 > দাঁড়িয়ে প্রস্রাবের ফলে মূত্রথলির নিচে জমে থাকা দূষিত পদার্থগুলি শরীর থেকে বের হতে পারে না। বসে প্রস্রাব করলে মূত্রথলিতে চাপ লাগে, ফলে সহজেই ওসব দূষিত পদার্থ প্রস্রাবের সঙ্গে শরীর থেকে বেরিয়ে যায়।


02 > দীর্ঘদিন দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে প্রস্রাবের বেগ ধীরে ধীরে কমতে থাকে। ফলে তা ধরে রাখার ক্ষমতাও লোপ পায়।



03 > দাঁড়িয়ে প্রস্রাবের ফলে পেটের উপরের অংশে চাপ পড়ে না। ফলে পেটের দূষিত বায়ু বের হতে পারে না। উল্টে তা শরীরের উপর দিকে উঠে যায়। যে কারণে শরীরের অস্থিরতা, রক্তচাপ, হৃদস্পন্দনের মাত্রা বেড়ে যায়।



04 > দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করার ফলে দুষিত পদার্থগুলো মুত্রথলিতে জমতে থাকে; দীর্ঘদিন জমতে থাকা দুষিত পদার্থগুলো এক সময় কিডনিতে পাথর সৃষ্টি করে।



05 > দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে পুরুষের যৌন শক্তি কমতে থাকে এবং পুরুষাঙ্গ নরম ও তেনা তেনা হয়ে যায় এবং সহজে । সোজা ও শক্ত হতে চায় না। উত্তেজনার সময় যদিও শক্ত হয় । কিছুক্ষন পর কিছু বের না হতেই তা আবার ছোট ও নরম হয়ে যায়।



06 > দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে পরিবেশ দূষিত হয়। সেই দূষিত বায়ু। আমাদের দেহে প্রবেশ করে বিভিন্ন জটিল রোগের সৃষ্টি করে।



07 > দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করলে তার ছিটা দেহে ও কাপড়ে লাগে ফলে তা দুর্গন্ধের সৃষ্টি করে।



গবেষণায় দেখা যায়
যারা নিয়মিত দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করে শেষ জীবনে তারা কিডনির বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়। জন্ডিস ও ডায়াবেসিটস নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

সুতরাং দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা থেকে বিরত থেকে সুন্নাতের অনুসরণ ও অনুকরণ করে সুস্থ্য ও সুন্দর জীবন-যাপন করার জরুরি।

স্বাস্থ্য বিজ্ঞান বলে উপরোক্ত দৈহিক সমস্যা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আমাদের অতি অবশ্যই বসে প্রস্রাব করা উচিত।

অথচ, সর্বশ্রেষ্ঠ স্বাস্থ্যবিজ্ঞানী আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (স:) চৌদ্দশত বছর আগেই দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করতে নিষেধ করেছেন এবং বসে প্রস্রাব করার আদেশ দিয়েছেন।


আল্লাহ তাআলা সবাইকে দাঁড়িযে প্রস্রাব করা থেকে বিরত থাকার তাওফিক দান করুন। সুন্নাতি গড়ে দুনিয়ার শান্তি ও পরকালের মুক্তির তাওফিক দান করুন। আমিন।